অ্যালিসিয়া ভিক্যান্ডার উক্তিমালা (৪)

অ্যালিসিয়া ভিক্যান্ডার উক্তিমালা (৪)

SHARE:

ড্যান্সিং ছাড়ার পরে বেশ কিছুদিন আমার তো অবাকই লাগত যে একটুও খারাপ কেন লাগছে না ভিতরে ভিতরে? ব্যাপারটা আসলে এমনই ছিল যে একটা পুরানা বন্ধু, অতটা ভালো বন্ধু সে না হতে পারে কিন্তু বন্ধু তো, অন্তত অনেকদিনের সঙ্গী তো, সঙ্গেই ছিল সবসময় এতটা বছর, তারে ছেড়ে দেয়ার সময় একটু খারাপ তো লাগাটা স্বাভাবিকই ছিল।

খুবই মিশ্র গোলমেলে একটা অনুভূতি হয় যখন আপনি দেখেন যে ম্যুভি নিয়া আপনার জীবনের যা-কিছু স্বপ্ন ছিল সমস্তই বাস্তবে রূপ নিচ্ছে, একইসঙ্গে আশঙ্কায় বুক কাঁপে যখন দেখেন যে আপনার সব স্বপ্নই বাস্তব হয়ে যাচ্ছে এবং তা প্রায় একই সময়ে একটার উপরে আরেকটা। আচমকাই আপনে দেখতেসেন যে এমন লোকগুলার লগে একরুমে বসে গপসপ করতেসেন যাদেরে এই কিছুদিন আগেও স্বপ্নের জগতের মানুষ ভাবতেন আপনি। এলেবেলে কেউ না কিন্তু, জুডি ডেঞ্চের মতো মানুষের লগে আড্ডা দেয়া তো অবশ্যই জীবনের একটা শ্বাসরুদ্ধকর মুহূর্ত। তখনই ভয় হয়, এই জগতে টিকতে পারব তো! এইখানে এদের পাশে থাকতে গেলে যেই লেভেলের প্রতিভা লাগে, তা আমার আছে তো! ভয় হয়, উপর্যুপরি দুশ্চিন্তা হয়।

সৌভাগ্য মানি এইটাই যে এমন সমস্ত লোকেদের লগে কাজ করতে পারতেসি যাদেরে জীবনভর পর্দায় দেখে এসেছি এবং যাদের তারিফ করা ছাড়া আর-কিছু করণীয় আছে বলে ভাবি নাই কখনো। সকলেই এরা পাব্লিক ফিগার এবং আমি এখন দেখতেসি রোজই যে এই পাব্লিক ইমেইজটাকে এরা ক্যামনে হ্যান্ডল করেন রোজ। কথা হচ্ছে যে নিজের কাজটা নিজের পেশাটা আপনি উপভোগ করতে চাইলে অজস্র রাস্তা আছে উপভোগের। যদিও সবাই বলে বেড়ায় কিছুই নাকি আগের মতো নাই, সবকিছুই নাকি বখে যেতেছে!

সবাই যেভাবে নিজের শরীর নিয়া খালি সলজ্জ জড়সড় থাকে, এইটা বাজে একটা ব্যাপার, এই বেহুদা অস্বস্তি খিড়কি দিয়া ছুঁড়ে ফেলা চাই বিলম্ব না করে এক্ষুনি।

সিনেমার পেশায় এসে এমন সমস্ত আবেগের পরিস্ফুটন নিয়া আপনেরে গলদঘর্ম মেহনত করতে হয় যেসব আবেগ আপনি হয়তো অন্য সময় আমলেই নিতেন না বা ফালতু এইসব আবেগ ফুটানির বিতিকিচ্ছিরিতা থেকে নিজেরে হয়তো শতহস্ত দূরে রাখতেন।

সংকলন, চয়ন ও অনুবাদন : বিদিতা গোমেজ

… …

COMMENTS

error: