প্রথম পর্ব মৌসুমী, ফিডব্যাক ও একটি ত্রিভূজ প্রেম  

প্রথম পর্ব মৌসুমী, ফিডব্যাক ও একটি ত্রিভূজ প্রেম  

ফিরে এসো এই অন্তরে
ফিরে এসো এই বন্দরের পথ ধরে
তুলনাহীনা বান্ধবী
যেওনাকো তুমি ওই দূরে
ব্যথা জাগে এই মন জুড়ে
হতে চাই ফিরে তোমার গীতিকবি

মৌসুমী, কারে ভালোবাসো তুমি
মৌসুমী, বলো কারে খোঁজো তুমি
মৌসুমী, আছি একা এই আমি
ভুলে অভিমান হও সঙ্গিনী।।

তুমি আছো প্রাণস্পন্দনে
তুমি আছো হাসি-ক্রন্দনে, বন্ধনে
অপরাজিতা নন্দিনী
চেয়ে দ্যাখো তুমি ওই চোখে
মিশে আছো সুখ আর দুঃখে
এঁকে যাই তোমার মুখছবি।।
[কথা : কাওসার আহমেদ চৌধুরী ।। সুর ও সংগীত : ফিডব্যাক ।। ব্যান্ড : ফিডব্যাক]

১৯৮৭ সালের কথা। ফিডব্যাকের সদস্যদের পরিচিত ক-জন বন্ধুর মধ্যে এক প্রেমকাহিনির প্লট তৈরি হয়। ত্রিভূজ প্রেমের এ-গল্প শুরু হয় একটি মেয়েকে ঘিরে। এমনকি ফিডব্যাকের মেম্বারদের ঘরোয়া আড্ডাতেও ওই মেয়েটিকে নিয়ে নানা রকম কথা হতো। আর এই ঘটনাটি নিয়েই ফিডব্যাকের আরেক পরিচিত কথক কাওসার আহমেদ চৌধুরী লিখে ফেললেন ‘মৌসুমী’ গানটি।

মেয়েটির নাম অবশ্য মৌসুমী ছিল না। তার আসল নাম জানাতেও রাজি হননি ফিডব্যাকলিডার ফুয়াদ নাসের বাবু। গানটি লেখার সময় ‘কারে ভালোবাসো তুমি’ — এ-লাইনের সাথে ছন্দে মেলানোর জন্যই মৌসুমী নামটি রূপক হিশেবে রাখা হয়েছে। মেয়েটির আসল নামটি গানের ছন্দে মেলানো সম্ভব হয়নি।

ফিডব্যাক  যখন তাদের অ্যালবাম বের করার পরিকল্পনা করে, ঠিক তখন গীতিকার এই থিম নিয়ে ‘মৌসুমী’ লেখেন। ‘মৌসুমী’ গানটির কম্পোজিশন দিয়েই শুরু করা হয় অ্যালবামের কাজ। গানটি রেকর্ডিং করা হয়েছিল এলভিস স্টুডিওতে।

গানপারটীকা : রচনাটা ছাপা হয়েছিল ২০০০ খ্রিস্টাব্দের আনন্দভুবন  ঈদসংখ্যায়। বর্ষ ৪ সংখ্যা ১৬, ০১ জানুয়ারি ২০০০। যৌথভাবে এটি লিখেছেন এম. এস. রানা ও রাসেল আজাদ। যদিও প্রথম প্রকাশকালে এর কোনো শীর্ষনাম ছিল না, ব্যান্ডের নাম দিয়ে একেকটা গানের জন্মকাহিনি বিবৃত হয়েছিল, গানপারে এর পুনর্প্রকাশকালে ‘প্রথম পর্ব মৌসুমী, ফিডব্যাক ও একটি ত্রিভূজ প্রেম’ শিরোনামে একে ক্যাপ্চার করা যাচ্ছে। ব্যান্ডমেম্বারদের সঙ্গে আলাপের ভিত্তিতেই প্রতিবেদকদ্বয় লিখেছিলেন গল্পটা, রেফারেন্স হিশেবে এইখানে ফুয়াদ নাসের বাবুর নামটা পাওয়া যায়। — গানপার

… …

 

গানপার

COMMENTS

error: