হান্ট

হান্ট

‘টপ্ গান্’ দিয়াই কি যাত্রারম্ভ হয়েছিল টম্ ক্রুজের? না, তার আগেও ম্যুভি তিনি করেছেন গোটা-পাঁচেক, ফ্লাইট বলতে যা বোঝায় তা আরম্ভ ‘টপ্ গান্’ থেকেই নিঃসন্দেহে। অ্যানিওয়ে। ব্যক্তিগতভাবে আমি কি টমির কারণে ‘টপ্ গান্’ দেখতে আগ্রহী হয়েছিলাম? নো, নেভার, না হে! ডেমি ছিলেন তখন ঘটনা একটা, ডেমি ম্যুর, আমাদের জীবদ্দশায়। টমিকে, ট্রুলি স্পিকিং, সেই অর্থে ভালো কোনোদিনই লাগে নাই। কপাল কার মন্দ, টমির না আমার, ন জানি নির্ণিতে। একটা সময়ে ‘ভ্যানিলা স্কাই’ কিংবা স্ট্যানলি কুব্রিকের ‘আইজ্ ওয়াইড শাট’ ইত্যাদি সিনেমায় টমিকে দেখেছি, মন্দ লাগে নাই, কিন্তু ওইগুলোও তো কখনো অভিনয়শিল্পের কারণে না বরঞ্চ ম্যুভির কারণে বা বলা যায় ডিরেক্টর কি হিরোয়িনের কারণে। একটায় ক্যাইট মস্ এবং অন্যটায় নিকোল্ কিডম্যান্ — যথাক্রমে ‘ভ্যানিলা স্কাই’ এবং ‘আইজ্ ওয়াইড শাট’ ম্যুভিদ্বয়ে — হিরোয়িনের রোলে প্লেইড ওয়েল্। উভয়েই বিবি হয়েছিলেন টমির রিয়্যাল লাইফে; এক-সময় ছাড়কাটও হয়ে গেছে অবশ্য।

টম ক্রুজ্ ওভাররেইটেড কি না অ্যাক্টর হিশেবে, তা জানি না, সেইটা আমরা চাইছি না বলতে। এমন হয়, এমনটা তো হয়ই, হতেই পারে। গুণের সীমা নাই, ওভার-বাউন্ড্রি হাঁকাচ্ছেন বছর ঘোরার আগেই, কিন্তু যুৎ লাগে না। ‘জ্যাক রিচার’ দেখতে যেয়েই, ২০১২ ম্যুভি, টমিকে লেগেছিল মোটামুটি মানানসই ভালো। ‘কোল্যাটের‍্যাল’ নামে একটা অ্যাকশনম্যুভির নামও নেয়া যায় অবশ্য। অসাধ্য ব্রতকর্ম, তথা ‘মিশন্ ইম্পোসিবল্’, টমের নামডাক গগনচুম্বিত উঁচায় নিয়ে গেলেও রোবটের বেশি কিছু মনে হয় নাই আমার কাছে বেচারা নায়ক মশিয়েকে। এর আগে ‘রেইন্ ম্যান্’, ‘জেরি ম্যাগ্যুইয়ার’ বা ‘অ্যা ফিয়্যু গ্যুডম্যান্’, ‘নাইট অ্যান্ড ডে’ ম্যুভিগুলোও মন্দ লাগে নাই। কিন্তু টমির কারণে সেগুলো ভালো লেগেছিল কোনোভাবেই বলা যাবে না মনেহয়। এমন হয়, এমনটা তো হয়ই, হতেই পারে। নিকোল্ কিডম্যানের ক্ষেত্রেও, টমেরই পুরনো তরফ, হয়েছিল অভিন্ন অভিজ্ঞতা আমার। ‘ম্যুলাঁ র‍্যুজ্’ নয়, মিউজিক্যাল অপেরা জঁরার সিনেমাখানা আনন্দপ্রদ হয়েছিল নিঃসন্দেহে, এবং স্ট্যানলির ম্যুভিও নয়, ‘দি আওয়ার্স’ ম্যুভিতে ভার্জিনিয়া উল্ফ চরিত্রে এসেই নিকোলকে মেনেছিনু অভিনয়শিল্পী বলে।

গেল বছর (বছরের নসিবই হচ্ছে যে বেচারা বছর-বছর গতই হতে থাকে খালি) রিলিজড টমির তুরুপতাস অ্যাকশন স্পাই ম্যুভি ‘মিশন্ ইম্পোসিবল্’ নতুন পর্ব। টম ক্রুজ অভিনীত ম্যুভি সিরিজটির ইথান হান্ট চরিত্রটি ইতোমধ্যে জেমস বন্ডের সমান মর্যাদার আসন দখল করে নিতে পেরেছে, এহেন মন্তব্যও উটকো নয় নিশ্চয়। এবারকার পর্বটির উপনাম ‘রগ্ নেশন্/Rogue Nation’, যেখানে সেই মিস্টেরিয়্যাস্ কিলার সিন্ডিকেটের পিছু ধাওয়া করতে দেখা যায় সিনেমাবর্ণিত আইএমএফ  তথা ইম্পোসিবল্ মিশন্স ফোর্স প্রতিষ্ঠানের দুর্ধর্ষ ইন্টেলিজেন্স অ্যাজেন্ট ইথান হান্টকে। এইটাও তথ্য হিশেবে ফেলনা নয় যে এর আগে আমরা এই ঋণক্ষুদ্র নোবেল দেশের লোকেরা আইএমএফ বলতে এদ্দিন খালি ইন্টার্ন্যাশন্যাল মুদ্রা ফান্ড বুঝতাম, ‘রগ্ নেশন্/Rogue Nation’ থেকে এর একটা আলাদা মানে জানলাম। তাছাড়া আমরা এলডিসি থেকে এমআইসি হয়েছি, লিস্ট ডেভেল্যপড কান্ট্রি থেকে হয়েছি মিডল্ ইনকাম্ কান্ট্রি, ইনকামগাছের আগায় উঠে গেছি, ইন্টার্ন্যাশন্যাল মুদ্রা তহবিলের বেইল ফুরায়া আইলো বলে।

যেমন ভড়ভড়িয়ে একটু উপরে ব্যক্ত হলো কথাগুলো, অত সোজাসিধা না ব্যাপারটা। অ্যানিওয়ে। এই সিরিজ্ ম্যুভিটির যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৯৯৬ সালে। একে একে চারটি ফিল্ম প্রোডাকশন্ গগনচুম্বী খ্যাতি, দর্শকপ্রিয়তা আর কাঁড়ি কাঁড়ি ডলার কামিয়ে ২০১৫ সালে এসে এর পঞ্চম পর্বটিও যথাপূর্ব সফলতা লাভ করেছে, এই তথ্যও তো পুরনো হয়ে গেছে। গেল বছর (টু-থাউ-ফিফটিনের) জুলাই মাসেই প্রিমিয়্যার হয়েছে এর ওয়ার্ল্ডোয়াইড, সর্বসাম্প্রতিক পর্বের, এরই মধ্যে এন্তার পোজিটিভ রিভিয়্যু জুটেছে অ্যাকশন ফ্র্যাঞ্চাইজ্ ম্যুভি হিশেবে।

ব্রুস গ্যেলারের নির্মিত আখ্যান অবলম্বী সিনেমার এই এপিসোডের স্ক্রিনপ্লে করেছেন এবং ডিরেকশন্ দিয়েছেন ক্রিস্টোফার ম্যাক্যুয়ারি। সিনেমার নায়ক চরিত্রে রূপদানকারী টম ক্রুজ্ প্রযোজকদের মধ্যেও একজন, অর্থলগ্নি করেছেন লাভের মুখ দেখবারই আশায়, পয়সাপাত্তি তো টমের ম্যালাই আছে। দেড়শ মিলিয়ন ইউএস ডলারে বানানো ম্যুভিটি ইতোমধ্যে এনে সেরেছে প্রায় সাতশ মিলিয়ন উঠিয়ে। এই সমস্ত তথ্য উইকির ওভার্ভিয়্যু গ্য-থ্রু করে গেলেই পাওয়া যায়। অ্যানিওয়ে।

Mission: Impossible - Rogue Nationএকই বছরে জেমস বন্ড নতুন ম্যুভিটিরও শুভমুক্তি সাধিত হয়েছে, গেল ২০১৫ গোলাঘরের শস্য উভয় বই/গ্রন্থ, সংলগ্ন সময়ে মিশন্ ইম্পোসিবলের হাইওয়ে দাবড়ানো দেখে অনেকেই তুলনা করে দেখতে চাইতেই পারেন কে এগিয়ে আর কে রেসের শেষে পেছনে রইল পড়ে। এমনিতে অবশ্য দুই সিনেমার পৃথক ফিচার থাকলেও সাদৃশ্যও বড় কম নয়। কিন্তু বন্ড এবং হান্ট চরিত্রের মধ্যে কে বেশি মারদাঙ্গা আর কে বেশি ইন্টেলিজেন্ট, এই লাইনে দর্শকদের অনেকেই পরপর ছবিদ্বয় দেখে উঠে কম্পেয়ার করবে, এতে আর আশ্চর্যের কি আছে। এইটা স্বাভাবিকই বরঞ্চ। বন্ড-হান্ট ভায়রাভ্রাতৃদ্বয় বাংলা ‘সাইত্যের’ বোমারু কবি নাকি যে কে বড়মাপ আর কে বাচ্চামাপ দাঙ্গা বাঁধাইয়া কামড়াবে ফেসবক্ষে একে-অপরের উরু ও স্কন্ধ?

ম্যুভিটা দেখে সেরে মনে হলো, টম ক্রুজ্ তো যথাসাধ্য করেছেন, নায়কোচিত ভঙ্গিমা আর শার্প ঘাড়-ব্যাকানো ও উতিইতি তাকানো, উনার আর করার আছেটাই-বা কী! কিন্তু কোথাও কি বয়সভার আক্রমণ করছে এই দাপুটে মালকড়িওয়ালা তারকাটিকে ক্রমে? দেখার পর দর্শক হিশেবেই নিজের মুখোমুখি নিশ্চুপি-নিরাই রিফ্লেকশন্ করা হলো। অবশ্য যথারীতি মিশন্ ইম্পোসিবল্ ম্যুভির কোনো আইটেমই মিসিং মনে হবে না দেখতে বসে। মোটরবাইকিং তো আছেই, আছে উড়োজাহাজের উইং চেপে ক্রুজের স্টান্টসিন্। সেক্স আছে, ভায়োলেন্স আছে বুদ্ধিদীপ্ত, সুনিপুণ মানুষখুন এবং সুরভিত যৌনতা, প্রাযুক্তিক গোয়েন্দাবৃত্তি এবং এস্পায়োনাজ্ দুনিয়ার নানান কারিকুরি সবই আছে।

রেবেকা ফার্গুস্যন্ অভিনয় করেছেন এই সিনেমার প্রধান নারী চরিত্রে। এই স্যুইডিশ অভিনেত্রীটিকে এর আগে এলিজাবেথ উডভিল্ চরিত্র রূপায়ণে দেখা গিয়েছিল অত্যন্ত শক্তিশালীভাবে টেলিভিশনড্রামা ‘দ্য হোয়াইট ক্যুইন্’ সিরিজে। মিশন্ ইম্পোসিবল্ এই এপিসোডে রেবেকার তীক্ষ্ণ যৌনাবেদন ও দ্রুতগতির অ্যাকশন ম্যুভমেন্টগুলো উপভোগ্য হয়েছে। এই অভিনয়শিল্পীর মুখের সঙ্গে সেকেন্ড ওয়ার্ল্ড-ওয়ারকালীন বিখ্যাত এক নারী, যিনি গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে দণ্ডিত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছিলেন, যার সঙ্গে একটা সাবকন্টিনেন্টাল্ কানেকশন্ রয়েছে ঔরসসূত্রে, সেই নুর এনায়েত খানের চেহারা — ব্র্যান্ডনাম যার মাতাহারি — ইয়াদ হয়। এই মিলখোঁজা ব্যক্তিগত মুদ্রাদোষ নিতান্তই।

মিশন্ ইম্পোসিবল্ ষষ্ঠ পর্বের তোড়জোড় ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গেছে। সম্প্রতি টম্ ক্রুজ্ স্বয়ং একটি টিভিট্যকে এই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আমাদিগেরে। নেক্সট এমআই-সিক্স প্রোজেক্টে ক্রুজ্ ছাড়া আর কারা সম্ভাব্য অভনয়কারী ইত্যাদি নিশ্চিত হওয়ার জন্য হলিউডি সিনেম্যাগগুলো ক্রল্ করা যেতে পারে; সেইটা নায়কভক্ত/এমআই-সিক্সফ্যানদের যার যার দায়িত্বে করতে হবে অগত্যা। আমি কেবল এইটুকু অনায়াসে করি আপনাদিগেরে অবহিত, ২০১৬ সালের শুরুর দিকেই শ্যুটিং শুরু হবে বলে এর অন্যতম প্রোডিউস্যর টম্ ক্রুজ্ সূত্র থেকে এলান্ এসেছে। সেই হিসাব মোতাবেক এই রিপোর্ট প্রকাশকালীন প্রোজেক্টটা প্রায় শেষের পথে। এই ইয়ারেই — কিংবা সামনের ইয়ারেই — রিলিজ্ হবে এমনটা আশা করা যায়।

এমনিতে বেসম্ভব বকাবাদ্য হয়ে গেছে। একটা বাড়তি কথা এইখানে বলেই চলে যাব। টম্ ক্রুজকে দেখলেই আমার ইন্ডিয়ান্-বাংলা নায়ক প্রসেনজিতের হালত মনে পড়ে। ট্যালেন্টেড কি না ছাই, ট্যালেন্টের আমি কি বুঝি, কিন্তু বয়সকে বেল্ট দিয়া বান্ধিয়া রাখার ব্যাপারটা আসলেই রিডিক্যুলাস্। অবশ্য মুচকি কিংবা ফিক করে হেসে প্রসেনেরে মারহাব্বা জানানোই যায়। কেবল কথা এ-ই যে, এবং এইটা একেবারে মিনিম্যাল্ স্ট্যাইটমেন্ট যে, এর মধ্য দিয়া যা ঢাকবার চেষ্টা তা তো ঢাকা যায় না বাছাধন! বরং বিরক্তি পয়দা করে এহেন খোদার উপর খোদকারিকর্ম। অবিকশিত কুলবড়ই হয়ে থাকা আজীবন। মর্গ্যান্ ফ্রিম্যান্, অ্যাল্ প্যাচিনো, অমিতাভ বচ্চন, টম্ হ্যাঙ্কস্, ডাস্টিন্ হফম্যান্, নিকোল্যাস্ কেইজ্, জ্যাক্ নিকোল্সন্, ডেঞ্জেল ওয়াশিংটন … টমি-পোসেন্ দুইয়ের কারো নসিবেই নাই এই লেভেলে যাওয়া। পারা আদৌ কঠিন হতো না, বালকমূর্তিমান থাকবার উদ্ভট খায়েশ জলাঞ্জলি দিতে পারলে। কে বোঝাবে এদেরে, এবং বোঝার বয়সও তো ওরা পার করে ফেলেছে কবে সেই তিপ্পান্ন সনে!

 

Film Title: Rogue Nation ।। Released Year: 2015 ।। Genre: ActionAdventureThriller ।। Duration: 2h 11 min ।। IMDb Score: 7.4/10 ।। Director: Christopher McQuarrie ।। Stars: Tom CruiseJeremy RennerSimon PeggRebecca FergusonVing RhamesSean HarrisAlec Baldwin  ।। Music Score: Joe Kraemer  ।। Net profit approximately $ 682.7 million

প্রতিবেদনপ্রণেতা : জাহেদ আহমদ

পরের পোষ্ট
আগের পোষ্ট

COMMENTS

error: