হাড়ের গ্যারেজ

হাড়ের গ্যারেজ

SHARE:

রুদ্র আরিফ কবিতাডাঙায় পা রেখেছেন বর্তমান শতকের প্রথম দশক হিশেবে খ্যাত সময়খণ্ডে। এরই মধ্যে তার কবিতাবই রিলিজ হয়েছে একের অধিক। তবে, এইটাও উল্লেখ্য, এই দেশে বাংলায় দেদার সিনেলেখাকীর্তি দিয়া আরিফ ম্যুভিসমুজদারদের পছন্দভাজন হয়ে উঠেছেন দ্রুত। মূলত অনুবাদের মাধ্যমে দেশান্তরের গুরুত্বপূর্ণ ম্যুভিমেইকারদের নিয়া তার কাজকর্ম নন্দিত হয়েছে এরই মধ্যে।

এ-পর্যন্ত কবির যে-কয়টা কাব্যগ্রন্থ প্রকাশ পেয়েছে, সেইগুলোর থেকে এখানে এই বইতে একটি স্পষ্ট সরে-আসার ইঙ্গিত পাঠকের গোচরীভূত হবে। এমন নয় যে কবি তার পোয়েটিক ডিকশন বদলে ফেলেছেন; না, তা নয়, নিজের এ-যাবৎ অনুসৃত কবিতাকৌশলটিকে এইখানে এসে যেন অনেক বেশি ইঙ্গিত-বহনে-সমর্থ দ্যোতনাবাহী করে তোলার প্রয়াস পেয়েছেন।

রুদ্র আরিফের কবিতায় একটা আর্বেইন টোন গোড়া থেকেই পাঠকের নিকট বিদিত। নগরানুষঙ্গগুলো বক্ষ্যমান কবিতাবইতে একটা আলগ প্রকৌশলে যেনবা ভাস্কর্যাবয়ব ধারণ করতে চেয়েছে। ব্যাহত হয়নি তা-বলে এই কবির পূর্বতন নিশান তথা তার রক্-ন্-রল্ শব্দাবহে বাংলা কবিতার আবহমান নভোমণ্ডলে নতুনতর মূল্যযোজনার প্রত্যয়; সেই নিশান এখানে আরও উজ্জ্বল, আরও উড্ডীন, পরিণত ও রকিং।

রুদ্র আরিফ উজ্জ্বলালোকিত কবিতাডাঙায় এর আগে একে একে এনেছেন ‘ওপেন এয়ার কন্সার্টের কবিতা’ ও ‘র‌্যাম্পমডেলের বাথটাবে অন্ধ কচ্ছপ’; হাড়ের গ্যারেজ  কবিতামালায় কবির পূর্বাপর অগ্রসরণধারা পাঠক খুঁজে পাবেন।

বইটা পাব্লিশ করেছে চৈতন্য প্রকাশনী। খ্রিস্টাব্দ দুইহাজার-পনেরোয় বেরিয়েছিল বইটা। আকার, প্রচ্ছদ ও অন্যান্য সর্বপ্রকারেই দৃষ্টিনন্দন বইটা পাঠকের অভিনিবেশ দাবি করে। এই বইয়ের প্রচ্ছদআর্টিস্ট রাজীব দত্ত।

লেখা : আতোয়ার কারিম

… …

আগের পোষ্ট

COMMENTS

error: