কথাসরিৎসাগর : এলিজাবেথ টেইলর

কথাসরিৎসাগর : এলিজাবেথ টেইলর

SHARE:

যারা জিন্দেগিতে একটাও পাপ করে নাই তাদেরে নিয়া প্রোব্লেমটা হচ্ছে যে এরা আপনি নিশ্চিত থাকতে পারেন যখনতখন এমনসব পুণ্য করে বসবে যে আপনার গা জ্বলে গেলেও মুখে বেশিকিছু বলতেও পারবেন না। সাংঘাতিক বিরক্তিকর এরা।

কতকিছু করা বাকি, কতই-না সামান্য করা হয়েছে এ-জীবনের কর্তব্যগুলো, হওয়া বাকি এখনও অনেককিছুই জীবনে।

আমার বড় পরিচয় আমি একজন সার্ভাইভ্যর। মানুষ যতটা প্রতিকূল পরিস্থিতির ভিতর দিয়া যাইতে পারে এবং যেভাবে শেষমেশ বাঁচায়ে রাখে নিজেরে, জ্যান্ত উদাহরণ যদি দেখতে হয় তাইলে আপনারা আমারে দেখুন।

আমি খুবই অ্যাডভেঞ্চারাস। অনেক দরোজা বাকি এখনও, খুলে ভেতরে যেতে হবে সেইসব দরোজা, আমি পিছন ফিরে সেই দরোজাগুলো দেখতে দেখতে যাব।

ভাবতে গেলে অবাক লাগে যে সময় আমাদেরে কী অদ্ভুতভাবে ধৈর্য ধরতে শেখায়! টাইম যত কম আমাদের জীবনে, প্রতীক্ষার ধৈর্যটা আমাদের যেন ততই বেশি।

আমি সবসময় স্বীকার করি যে আমি একজন প্যাশনশাসিত মানুষ, প্যাশন দিয়া জীবিত, প্যাশন দিয়াই নিয়ন্ত্রিত।

বড় মেয়েদের দরকার বড়সড় খণ্ডের ডায়মন্ড।

স্ক্যান্ডালে জড়ালেই চিনবে কে তোমার রিয়্যাল ফ্রেন্ড আর কে নাম-কা-ওয়াস্তে ফ্রেন্ড।

স্বর্ণালঙ্কার পরতে ভালোবাসি আমি। কিন্তু স্বর্ণালঙ্কারগুলোর মালিক আমি বলে নয়, কেননা আলোকবিভার মালিক তো হয় না, আমি ভালোবাসি অলঙ্কার থেকে বিচ্ছুরিত বিভা। আলোকবিভার করতে পারো বড়জোর প্রশংসা, মালিক হতে পারো না তুমি সেই স্বর্গীয় দ্যুতির।

আমার জীবনে শ্রেষ্ঠ পথিকৃৎ পুরুষদের কয়েকজনই ছিলেন কুকুর এবং ঘোড়া।

সাধারণ গৃহবধূ হবার ভানভণিতা আমি করি না।

আমার রয়েছে একটা নারীশরীর এবং শিশুমন।

লোকে যখন আমারে দেখায়ে ফিসফিসায়ে বলে যে এ তো সবই পেয়েছে, আমার তখন জোরেশোরে চিৎকার দিয়ে বলতে মন চায় যে আমি এখনও আগামীকালটা পাই নাই।

জীবনে বহু যন্ত্রণা পারায়া আসছি এইখানে, বুঝলা বাছা, আমিই হিম্মতি মাই।

আমি শুধু সেই পুরুষদের সঙ্গেই ঘুমিয়েছি যাদেরে আমি বিয়ে করেছি। কয়জন নারী আছে যে এমন দাবি করতে পারে?

সিনেমায় অভিনয় করা ছাড়া বাকি সবকিছুই আমারে নার্ভাস করে।

যারা আমারে ভালো করে জানে এবং বোঝে, তারা আমায় এলিজাবেথ বলিয়া ডাকে। লিজ ডাকাটা আমি ডিসলাইক করি।

আমি খুবই নিষ্ঠাবতী স্ত্রী। সেইজন্যেই মনে হয় এই নিষ্ঠা ধরে রাখতে বেশি বেশি বিয়ে করার দিকেও নিষ্ঠা বিস্তার করা আমার দরকার।

সাক্সেস হচ্ছে একটা ঘামনাশক সুগন্ধী।

আত্মজীবনী বেরিয়েছে একাধিক, একটাও পড়ে দেখি নাই।

ক্লিয়োপ্যাট্রা ম্যুভির কিছুই ইয়াদ নাই আমার। ওই ম্যুভিতে অভিনয়ের সময় সেটে আরও অনেককিছুই ঘটছিল যা ম্যুভিতে দেখানো হয় নাই।

বিয়াশাদি হচ্ছে একটা সুমহান প্রতিষ্ঠান।

আমার মায়ের কাছ থেকে জেনেছি যে জন্মের পরে একটানা আটদিন আমি নাকি চোখ মেলিয়া তাকাই নাই। কিন্তু আটদিন পরে যে-মুহূর্তে নয়ান মেলেছি, দি ফার্স্ট থিং আই স্য ওয়্যজ অ্যান এনগেইজমেন্ট রিং। চোখজোড়া আংটি থেকে এই জীবনে আর সরাইতেই পারলাম না।

আমি খেয়াল করে দেখেছি যে পুরুষের বয়স যত বাড়তে থাকে ততই তারা বালকোচিত অল্পবয়স্ক হবার ভান করে। এইজন্যই দেখবেন বুড়াধুড়া ব্যাটালোকেরা যার বয়স যত বেশি তার নববিবাহিত বউ তত কচি।

চয়ন, সংকলন ও অনুবাদন : বিদিতা গোমেজ

… …

COMMENTS

error: