‘মেঠোসুর’ পঞ্চদশ বর্ষপূর্তি সংখ্যা : নানাবিধ মনন ও সৃজনের সমাহার || মোহাম্মদ বিলাল

‘মেঠোসুর’ পঞ্চদশ বর্ষপূর্তি সংখ্যা : নানাবিধ মনন ও সৃজনের সমাহার || মোহাম্মদ বিলাল

বিমান তালুকদারের সম্পাদনায় ‘মেঠোসুর’ পঞ্চদশ বর্ষপূর্তি সংখ্যা বেরিয়েছে ডিসেম্বর  ২০২৩-এ। সংখ্যাটির বিষয়াবলি বৈচিত্র্যময়। ‘সম্পাদকীয়’, ‘শুভেচ্ছাকথন’, ‘আশয়বিষয়’, ‘আচারবিচার’, ‘কবিতা’, ‘সমকাল সম্ভাবনা হালহকিকত’, ‘শিল্পকলা শাস্ত্রগ্রন্থ গল্পবলা’, ‘জীবনযাপন দখিন হাওয়া’, ‘মূল্যাঙ্কন মননচারণ’, ‘আলোকচিত্রে মেঠোসুরের কার্যক্রম’ প্রভৃতি বিষয়বিভাগ পত্রিকাটিকে সমৃদ্ধ করেছে।

বিগত বছরগুলোতে, যতটা দেখতে পেয়েছি, ‘মেঠোসুর’ বেরিয়েছিল ট্যাবলয়েড পত্রিকার আকারে, এবার পঞ্চদশ বর্ষপূর্তি সংখ্যাটি বেরিয়েছে লিটলম্যাগের আকৃতিতে। তবে এটি প্রকৃতিতে লিটলম্যাগ থেকে কিছুটা ভিন্ন। অনেকগুলো গদ্য রচনা বেরিয়েছে ছদ্মনামে, রয়েছে মেঠোসুরের বছরব্যাপী কার্যক্রমের ছবি। মেঠোসুরের সম্পাদক বিমান তালুকদার গ্রামে-গ্রামে, প্রতিষ্ঠানে-প্রতিষ্ঠানে, দেশে-বিদেশে বিশেষ ধরনের গান করে থাকেন, গুরুসদয় দত্ত প্রবর্তিত ব্রতচারী আন্দোলনের কলাকৌশল ও সংগীতকে একালে জনজীবনে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার ব্রত নিয়েছেন তিনি, ‘মেঠোসুর’-এ এর হদিস রয়েছে।

‘মেঠোসুর’-এ বিষয় সন্নিবেশে বিমান তালুকদারের বেশ মুনশিয়ানা আছে। প্রবন্ধগুচ্ছের পরে কবিতাবলি, আবারও প্রবন্ধগুচ্ছ, পুনরায় কবিতাবলি, স্মৃতিগদ্য, ভ্রমণকাহিনি, ধারাবাহিক উপন্যাস, কবিতা; সাহিত্যসংস্কৃতিবিষয়ক মূল্যায়নধর্মী প্রবন্ধগুচ্ছের পর কবিতার সমাবেশ। বেশকিছু মূল্যবান রচনা — প্রবন্ধ, গল্প, কবিতা রয়েছে এতে যা পাঠকের পরিতৃপ্তি ও প্রয়োজন সাধন করতে পারে।

এবারে নানাবিধ বিষয়সূচির সঙ্গে খানিকটা পরিচয় করিয়ে দিই যাতে আগ্রহী পাঠকের কাজে লাগতে পারে।  ‘আশয়বিষয় আচারবিচার’ অংশে রয়েছে ‘বাংলার বসন্তোৎসব : ঐতিহ্য ও পরম্পরা’ / রাতুল চৌধুরী; ‘বৃহত্তর সিলেটের লোকজ শিল্পকলা ও প্রত্নসম্পদ : সংক্ষিপ্ত পর্যালোচনা’ / অরবিন্দ দাসগুপ্ত;  ‘ছড়ায় ছড়ায় কিচ্ছা : বিধুভূষণ ভট্টাচার্য; ‘ধানগাছের গর্ভধারণ আচার’ / সজল কান্তি সরকার; ‘ছড়ায় ছড়ায় ছড়াছড়ি’ / আব্দুল করিম কিম; ‘বাবাহর’ / দিব্যেন্দু নাথ; ‘হারিয়ে যাওয়া কয়েকটি লৌকিক ব্রত-পূজা’ / গোপালচন্দ্র দাস।

‘কবিতা’ অংশে রয়েছে ‘সমুদ্রের বালি কেটে কেটে হাওয়া উড়ে যায়’ / মোহাম্মদ হোসাইন; ‘শ্যামল দেশের লোক’ / মুজিব ইরম; ‘আমি শহীদ মিনারে যেতে চাই’ / প্রশান্ত কুমার সাহা; ‘তোমার থেকে’ / পুলিন রায়; ‘শাশ্বত সেই বাংলাদেশ’ / সুমন বনিক; ‘লাউয়াছড়ায় সূর্যাস্ত’ / মোহাম্মদ বিলাল; ‘দেহ ভাঙ্গার শব্দ’ / মাশুক ইবনে আনিস; ‘নিজ গুণে দয়াল বন্ধু’ / নিশিকান্ত দাস; ‘মেঠোসুর’ / কল্যাণ চট্টোপাধ্যায়; ‘ফ্র্যাকচার’ / সু-ব্রত; ‘নদীমাতা’ / রইস মনরম; ‘সম্পর্ক’ / দেবজ্যোতি কর্মকার; ‘কর্মের বন্ধুত্ব’ / হুমায়ুন আকাশ; ‘সেই স্বপ্ন লালন’ / সুফিয়ান আহমদ চৌধুরী; ‘বা বিধউ কিনরেম’ / ফাল্গুনী চক্রবর্তী।

‘সমকাল সম্ভাবনা হালহকিকত’ অংশটিও আসলে প্রবন্ধের সমাবেশ। যেমন : ‘একুশ শতক : পর্যটন শিল্পের স্বর্ণসম্ভাবনা’ / ওবায়দুল মুন্সী; ‘চিরদিনের চির ভালোলাগা যেখানে’ / বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন; ‘পরিবর্তিত নতুন শিক্ষা কারিকুলাম’ / মোঃ আতাউর রহমান; ‘মনিপুরী নৃত্যকলা শিক্ষণ প্রবেশিকা প্রসঙ্গ’ / ড. সেলু বাসিত; ‘সময়ের মুখোমুখি একা’ / অভিক ভট্টাচার্য; ‘করিমপুর লিটল ম্যাগাজিন মেলা ও তার আন্তর্জাতিকতা’ / মিমি রহমান।

এরপরে আবারও কবিতার সমাহার। সেগুলো হলো — ‘অবোধ মানুষেরা’ / শেরাম নিরঞ্জন; ‘স্রষ্টা ও শিল্প’ / রাসরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়; ‘খোকার মিছিল’ / পরিতোষ বাবলু; ‘ইতিহাস’ / আতিকুর রহমান হিমু; ‘আমি নাগরিক’ / বাবুল আহমদ; ‘বয়সের জ্যামিতি’ / রোদ্দুর রিফাত; ‘হিন্দুকুশ’ / কনাদ কপিল; ‘ধানসিঁড়ির উঠোন’ / গৌতম সাহা; ‘সুজালো যশের যৌথ কবিতা’ / আদিত্য আনাম; ‘অতীতকাল ও বাতাসের মেহনত’ / দিপংকর মারডুক; ‘অথচ আমি তার সঙ্গী হতে চেয়েছিলাম’ / রাজেশকান্তি দাশ; ‘লিখে রাখে কবি’ / জুয়েল রাজ; ‘বাংলার জয়গান’ / নিপু মল্লিক; ‘রচনারাশি’ /পথিক; ‘জীবন মরণ এই ছবিটাই’ / আনিসুর রহমান বাবুল; ‘আশা নদী’ / তারেশ কান্তি তালুকদার; ‘রোদের সন্তান’ / সপ্ত দাস।

‘শিল্পকলা শাস্ত্রগ্রন্থ গল্পবলা’ অংশে রয়েছে উপন্যাস, প্রবন্ধ ও গল্পের সমাহার। ‘সুর বাজে’ / আতাউর রহমান; ‘ফিরে চল মাটির টানে’ / কালদর্শী; ‘পাসওয়ার্ড’ / সংযুক্তা দাস পুরকায়স্থ; ‘রিরংসু’ / মাধব রায়; ‘বিদ্রোহী কবিতার একশো বছর’ / বাবুল আহমদ; ‘মণিপুরী ঝুলননৃত্য’ / এ কে শেরাম; ‘হাওর পাড়ের লোকগান প্রসঙ্গে’ / কাহালার হেমু; ‘এক পাগল মুক্তিযুদ্ধার উপাখ্যান’ / হাবিব আহমদ দত্তচৌধুরী; ‘ও আমার বাংলা মা’ / উজ্জ্বল দাশ।

তারপর আবারও কবিতার পালা। এখানকার কবিতাবলি হচ্ছে ‘শিঙ্গা’ / জুবায়ের দুখু; ‘সেদিন পানশালায়’ / অয়ন সাঈদ; ‘শক্ত শিকড়’ / প্রাসাদ নন্দী; ‘এখনো দাঁড়িয়ে আছি’ / বাবুল চৌধুরী; ‘পাহাড়দ্বার’ / হামিদুল ইসলাম শেখ; ‘অভাব সন্ত’ / প্রামানিক; ‘শব্দদূষণ’ / দীপঙ্কর বিশ্বাস; ‘রাত-স্বপ্নের গাঙচিল’ / অমিত দাস; ‘একটা শহর’ / নূর সাহিম রেজা।

আবারও কয়েকটি প্রবন্ধ মুদ্রিত হয়েছে। এগুলো স্মৃতিকথা বা ভ্রমণ আখ্যান। যেমন — ‘প্রকৃতিভবন শান্তিনিকেতন’ / রয় অঞ্জন; ‘ভালোটা নেয়া’ / অর্পিতা আঁখি দে; ‘যাত্রাপথে আনন্দ গান মেঠোসুর’ / সন্দীপ দেব; ‘মেঠোসুরের যাত্রাপথে কলকাতা থেকে ঝাড়গ্রাম’ / রূপকার; ‘আগে কী সুন্দর দিন কাটাইতাম’ / প্রিয়াঙ্কা রায়।

আবারও কয়েকটি কবিতা স্থান পেয়েছে। ‘জলের গান’ / এনামুল হক পলাশ; ‘আছুরেখার সমীকরণ’ / লুফাইয়্যা শাম্মী; ‘একুশের ঋতু’ / হুমায়রা জাহান রুপু; ‘বাহারি রংয়ের ঘুড়ি’ / মো. মতিউর রহমান; ‘হাওরজীবন’ / শুভাশীষ তালুকদার (শিমুল); ‘প্রকৃতির গীত’ / এল্টন সরকার; ‘বন্ধু রে’ / শীতন কান্ত দাস; ‘আউকা ভাই আউকা’ / নন্দলাল গোপ।

আবারও একগুচ্ছ প্রবন্ধের দেখা পেলাম। সেগুলো হচ্ছে — ‘কবি আবদুল গফফার দত্তচৌধুরী’ / মিহিরকান্তি চৌধুরী;  ‘লোকসংস্কৃতির এক উজ্জ্বল নক্ষত্র মরমি কবি দূর্ব্বীণ শাহ’ / অজয় কৃষ্ণ পাল; ‘রেডস্যালুট কমরেড শ্রীকান্ত দাশ’ / মোহাম্মদ মনির উদ্দিন; ‘কাব্যবিশারদ একলিমুর রাজা চৌধুরীর একটি কবিতা’ / মাহাবুব রহমান শেখ;  ‘সাধক কবি নুরুল হক : দ্বিতীয়  প্রয়াণবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি’ / স্বপন পাল; ‘বাউল সাধক চাঁন মিয়ার জীবন ও গান’ / আল আমিন সালমান।

আবারও কবিতার পালা। কবিতাগুলো ‘বিরুৎ বাউল ফুলে’ / মনজুর মোহাম্মদ; ‘জন্মে জন্মে আশা’ / মেকদাদ মেঘ; ‘তবু সুরের কীর্তন’ / জয়দেব কর; ‘তৃষ্ণামুখর তল্লাট’ / ইভান অরক্ষিত; ‘তৃষ্ণা’ / মাফরুহা মানসুর অদ্বিতী; ‘পুঁজিবাদের চক্কর’ / হৈমন্তী শুক্লা; ‘নতুন কবিতা’ / ফতহুল করিম হাসান; ‘যেখানে বর্ণের কোনো বানান নেই’ / তাসনুভা অরিন।

এ পর্যন্ত নির্জলা সাহিত্য, পরে আরও দুটো বিষয় সন্নিবেশিত হয়েছে — ‘কৃতজ্ঞতা’ এবং ‘আলোকচিত্রে মেঠোসুর কার্যক্রম’। এই আয়োজন মন্দ লাগেনি, কালের ভেলায় স্বীকৃতি অথবা পদচিহ্ন থাকাই তো জীবন। ‘মেঠোসুর’-এর সম্পাদক সহজ সাবলীলতার মানুষ, বিষয়বিবেচনার ক্ষেত্রে তাঁর চারণমনের প্রকাশ লক্ষণীয়। দুশো চৌত্রিশ পৃষ্ঠার ‘মেঠোসুর’-এর সম্পাদকীয় বয়ান ভালো লেগেছে। সম্পাদকীয়তে আহ্বান জানানো হয়েছে — “ভালো করে কিছুই দেখা যাচ্ছে না বলে নিরালোকে দিব্যযাত্রা আমাদের কোথায় নিয়া যাচ্ছে একবার ভাববার দরকার আছে।”

সত্যিই তো, ভালো করে কিছুই দেখা যাচ্ছে না আজকাল। সম্পাদকের প্রয়াস সার্থক হোক, ‘মেঠোসুর’ বিস্তৃত হোক।


মোহাম্মদ বিলাল ।। সহযোগী অধ্যাপক, বাংলা বিভাগ, মুরারিচাঁদ কলেজ, সিলেট ।। ০১৭১২৮১১৮০২, mdahmedbil@gmail.com


গানপারে ম্যাগাজিন রিভিয়্যু
বিমান তালুকদার রচনারাশি
গানপারে বইরিভিয়্যু

গানপার

Support us with a click. Your click helps our cause. Thank you!

COMMENTS

error: You are not allowed to copy text, Thank you