জিলিয়ান অ্যান্ডার্সন উক্তিমালা (৩)

জিলিয়ান অ্যান্ডার্সন উক্তিমালা (৩)

টানা নাইন ইয়ার্স একটা টেলিভিশনসিরিজ করার পরে এত লম্বা ধারাবাহিকে আমি ইনভোলবড হইতে চাই নাই আর। এমনকি দীর্ঘদিন আমি আর সেটে যেয়ে ক্যামেরার সামনেও খাড়াই নাই। কিন্তু যখন শুরু করেছি আবারও, আমি ফিল্মের দিকেই দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছি, ফিল্মেই ফোকাস করেছি।

মেডিটেশন এবং ইয়োগা ব্যাপারগুলা হচ্ছে নিজের সর্বোচ্চ ও সর্বোত্তম অংশের সঙ্গে কানেক্টেড হবার প্র্যাক্টিস। একবার কানেক্টেড হয়ে যেতে পারলে আপনি দেখবেন আপনার যা-কিছু সমস্যার সমাধান দরকার তার সবই আপনি পেয়ে যাচ্ছেন ওই অংশের যোগসাজশে।

একটা বাজে প্রবণতা আছে আমার মধ্যে এবং সেটা হচ্ছে যে আমি জীবনটা চালাই ফ্যুল স্পিডে এবং এই স্পিডে কেউ কুলিয়ে উঠতে পারে না আমার লগে। একটা ওয়ান-ম্যান ব্যান্ডের মতো চলাফেরা আমার। চরৈবেতি ছাড়া আর-কোনো মন্ত্রেও আমার দীক্ষা নাই। ফলে হয়েছে কি যে, কেউ খুব-একটা আমারে হেল্প করতে আগায়া আসতে পারে না, চাইলেও পারে না। আমার যেহেতু থামাথামি নাই, কাজেই রিলেশনশিপগুলাও খুব বেশি টিকানো সম্ভব হয় না। আজকাল আমার এই টেন্ডেন্সি নিয়া হাহুতাশ লাগে। এইটারে চেইঞ্জ করতে চাই আমি। স্পিডটা স্লো-ডাউন করতে চাই।

ফিল্মের সেটে শ্যুটিঙের সময় আমি চারপাশের মানুষজনের লগে দিব্যি দুষ্টামি-ফস্টিনষ্টি চালাইতে পারি, তীব্র মজাক-তামশা চালাইতে পারি, এতে আমার কাজের কোনোই ব্যাঘাত ঘটে না।

সংকলন, চয়ন ও অনুবাদন : বিদিতা গোমেজ

… …

গানপার

COMMENTS

error: You are not allowed to copy text, Thank you