প্রিয় ফল || রাহাত শাহরিয়ার

প্রিয় ফল || রাহাত শাহরিয়ার

আপনার সবচেয়ে প্রিয় ফল কি! — এ প্রশ্ন সাধারণত গণ্যমান্য ব্যক্তিকে করা হয়। আজ নিজেকে নিজেই গণ্যমান্য ধরে নিয়ে ব্যাপারটা নিয়া সিরিয়াস হচ্ছি আর নিজেকে প্রশ্ন করছি। ফলফলাদি নট মাই থিং। তাই খুব সীমিত অ্যারিয়ায় থাকব। এমন একটা ফল হতে হবে, যার নাম শুনলেই হুঁশ চলে যাবে!

নো অফেন্স টু অ্যানি —

১২ মাস ঘরে-বাইরে সাথেই ছিলেন, আছেন, থাকবেন — কলা। সকলের ভাবি। তাই উনাকে সবচেয়ে প্রিয় করা যায় না।

গরমের সময়টাই মৌসুমী ফলের জন্য। আম। আহা! কেটেকুটে সুন্দর করে পরিবেশন করা আম আমি খেতে পারি না। পুরোটা হাতে নিয়ে বাকল কামড়ে suck করে আমার খাওয়া। সমস্যা — ইন্ডিয়া, পাকিস্তান একে অলরেডি জাতীয় ফল করে ফেলেছে। বাংলাদেশ শুধু গাছটাকে আঁকড়ে রেখেছে জাতীয় গাছ করে।

কাঁঠাল। জাতীয় ফল। আমারও সুরাগভাজন। তবে হুঁশ হারাব না।

কমলা। ছাতকের কমলা খাওয়ার জন্য বাসায় আমরা ব্যাকুল থাকতাম। এখনো আমি সময়ে-অসময়ে মান্ডারিন অরেঞ্জ খাই। বিচি ছাড়াই আমার ফেভারিট। তবে টুউ কমন।

আঙুর। ফলটা টক।

জাম। সরিষার তেল আর গুঁড়ো মরিচ দিয়ে কালোজামের ভরতা। আমার হাফ এনেস্থিশিয়া। এখন কালোজাম খাওয়া হয় না। কানাডার জাতীয় ফল হচ্ছে ব্লুবেরি। কালোজামের বাচ্চার মতো দেখতে। টক মিষ্টি। তবে দেশের কালোজামের মতো না। বাদ।

পেয়ারা ভালো। তবে এর ছোট ছোট বিচি একটু কষ্ট দেয়।

লিচু নিয়ে খারাপ কিছু বললে জনতা তেড়ে আসবেন। তারপরেও বলি। একবার লিচু খেতে গিয়ে বিচির মাথায় শাদা পোকা দেখেছিলাম। আমি এখনো খাওয়ার সময় সতর্ক থাকি।

বাজারে ফলের অভাব নাই। পিচ, ডালিম, আপেল, আনারস, চেরি, অ্যাপ্রিকট, কিউই; আরো কত কী! তবে মোটাদাগে এই মেনশান করা ফলগুলাই জীবনে ঘুরে ফিরে। এর মধ্যে হয়তো কালোজামকেই সবচেয়ে প্রিয় ধরে নিবো। মিস করি …

আর আরেকটা ফলের কথা খুব শুনি। দেখিনি কখনো। তবে সেটা নাকি খুব ভিআইপি ফল। পেলে হয়তো তাকেই আপন করে নেবো আর সত্যি সত্যি গণ্যমান্য হয়ে যাব। প্রশ্ন করতে পারেন, — কোনটা?
— মেওয়া!

রাহাত শাহরিয়ার রচনারাশি

রাহাত শাহরিয়ার

COMMENTS

error: