জ্যোৎ স্না স ম্প্র দা য়  পাণ্ডুলিপির তারিফ

জ্যোৎ স্না স ম্প্র দা য়  পাণ্ডুলিপির তারিফ

স্মৃত-বিস্মৃত ঐতিহ্যের নবায়ন অথবা পুনরুদ্ধার নয়, আধুনিক ও অধুনান্তিক কোনো মতাদর্শিক নির্মাণ-পুনর্নির্মাণ-অবিনির্মাণ নয়, এ যেন স্বতঃস্ফূর্ত উদ্ভাবনা আর সশ্রম সম্পাদনার এক উদাহরণীয় ঘটনা। জাকির জাফরান প্রণীত ‘জ্যোৎস্নাসম্প্রদায়’ এমনই এক অতর্কিত কবিতাপ্রবাহ, অনুভূতিদেশের আলো ও অন্ধকার সমানুপাতে মেশানো শৈল্পিক সমাপতন, যুগপৎ কবি ও কবিতাপাঠক উভয়েই এর সাক্ষাতে সেই নিকষিত স্বচ্ছ সহজতার সন্ধান পাবেন যা বাংলা কবিতায় দীর্ঘকাল ধরেই ছিল অনুপস্থিত অথচ অভিপ্রেত ও আরাধ্য। অবশ্যই ইতিহাস ও ভূগোলের বিভা পাতায়-পঙক্তিতে এই কবিতামালায় ধৃত, তবে তা কাব্যশৌর্য লঙ্ঘন করে নয়, পলি ও পানির প্রেরণায় এই কাব্য রচিত হয়েও চৌহদ্দিডিঙানো অন্য কোনো উড়ানেরই চিহ্নবহ। ভুঁইফোঁড় নয় এ কাব্য, অবিরল না-হলেও দুই বিরল পূর্বসূরির সঙ্গে এর মর্ম ও মজ্জার সাযুজ্য লক্ষ করা যাবে এবং এহেন অবলোকন এই কবিতাসারির স্বাতন্ত্র্য ও অভিনতুনত্ব প্রতিষ্ঠায় নিঃসন্দিগ্ধ অবদান রাখবে; সেই পূর্বসূরিদ্বয়ের এক ‘রূপসী বাংলা’ এবং দুই ‘সোনালী কাবিন’। একবিংশ শতাব্দের জঙ্গমপূর্ণ জটিল সময়ে এসে কৃশকায় ব্যক্তি কীভাবে মেলোড্রামা বা প্যাম্ফলেটের আশ্রয় ছাড়াই বৃহৎ হয়ে উঠতে পারে, সবল ও সম্পন্ন হতে পারে, একঝটকায় তা-ই দেখায়ে দেয় ‘জ্যোৎস্নাসম্প্রদায়’। আবহের দিক থেকে এ পৌরাণিক ও দৈনিক একইসঙ্গে। এই কাব্যপ্রবাহ অনাদি ও অনিঃশেষ এক ভ্রমণালেখ্য; জন্মাভিযাত্রার ও জাতিস্মরের উত্থানপর্ব। স্বর, সুর, স্পর্শ ও গন্ধের এক সচিত্র সংশ্রয়। এর বাকপ্রতিমারা চারুকুশলতায় নির্মাণপ্রণালির দাগ ও দর্প থেকে মুক্ত। মধুসূদনীয় অমিত্রাক্ষরবৃত্তেরই সৃজনোদ্ভাসে এর গা-গতর সুঠাম ও স্নিগ্ধ, অথচ প্রকরণচাতুর্য অথবা আলঙ্কারিক অঙ্গশোভায় আবিল নয় এর দৈহিক দেশনা। আবহমান বাংলা কবিতায় এই কাব্যোন্মেষের ঘটনাটা পাঠক-সকলেরে স্মরণ করাবে সদর স্ট্রিটের দোতলা বারান্দায় সেই নির্ঝরের স্বপ্নভঙ্গের মুহূর্তটি, কিংবা রাইনার মারিয়া রিল্কের দ্যুয়িনো দুর্গের সে-এলিজিনিচয় আবির্ভাবের বিস্ময়। কেবল সতীর্থ কবি কিংবা কাব্যপাঠকের কাছেই তো নয়, আপতন বিবেচনায় এ-প্রবাহ খোদ এর ধাত্রী কিংবা জননী কবির কাছেও সম্মোহনীয় স্বয়ম্প্রভ সবিস্ময়; এ-পৃথিবী একবার পায় তারে, একজীবনে, দুইবার কখনোই নয়। এ এক অখণ্ড জমিজিরেতের, অবিভক্ত অন্তরীক্ষের, অনাদিগন্ত জলবায়ুবৈচিত্র্যের ঋতুপ্রবাহ। পরিচ্ছন্ন কালজ্ঞান ও কল্পনার সারবত্তায় সৃজিত সর্বস্ব-উজাড়-করা বাংলা ভাষায় এক চৈতন্যমগ্ন দোয়েলের নিরঞ্জন শিস এই ‘জ্যোৎস্নাসম্প্রদায়’। নির্ভেদ বাংলা ভাষার পাঠক এর নিঃশঙ্ক সহায়।

লেখা / জাহেদ আহমদ ২০২০


জাকির জাফরান প্রণীত ‘জ্যোৎস্নাসম্প্রদায়’ শিরোনামোক্ত কবিতাবইটা ঢাকার জলধি প্রকাশনী  থেকে বেরিয়েছে ২০২০ নভেম্বরে। এর ছাপা, বাঁধাই, পাতাবিন্যাস সমস্তই দৃষ্টিমোহনীয়। বইয়ের চারকালার সাদামাটা ম্যাড়ম্যাড়া কাভারটা রাজীব দত্ত করলেও গ্রন্থভুক্ত কবিতাবলির ব্যঞ্জনাবাহী চিত্রগুলো করেছেন সত্যজিৎ রাজন। উল্লেখ্য, গ্রন্থরূপ পরিগ্রহের আগে এর পাণ্ডুলিপি পড়ে একটা তাৎক্ষণিক প্রোমোর প্রয়োজনে এই রিভিয়্যু রচিত হয়েছিল। ওই অর্থে এইটা আলোচনা নয়, — পাখিনেত্রবীক্ষণ বড়জোর, কিংবা কাব্যগ্রন্থটার আলতো পরিচয়। এই বইটা নানান কোণের আলোচনার দাবি রাখে, যেমন বইটা সাধারণ্যে ব্যাপক পঠিত হবারও প্রত্যাশা হাজির করে এর ঠিকঠাক বিপণন নিশ্চিত করা গেলে। — লেখক

… …

জাহেদ আহমদ

COMMENTS

error: