মানুষ, রাজনীতি, গান ও সায়ান || আহমদ মিনহাজ 

মানুষ, রাজনীতি, গান ও সায়ান || আহমদ মিনহাজ 

 “…রাজনীতি প্রত্যেকদিন পালটায়। মানুষ রোজ পালটায়। মাটি রোজ পালটায়। সেখানে রাজনীতি কোথাও চূড়ান্ত রূপ পেয়ে গেছে বলে আমার বিশ্বাস হয় না। আবার এমনও হতে পারে, আমি ভালো করে ‘বাম’ বুঝি না বলেই এমন কথা বলছি কিংবা ভাবছি যে এই দর্শনগুলো ‘আবদ্ধ’ হয়ে গেছে। মোদ্দা কথা, আমি কোনো দর্শনে আনুষ্ঠানিকভাবে দীক্ষা নিইনি। তাই আমাকে সেই দর্শনে শিক্ষিত বলা যায় না। সেটা ভুল হবে। কিন্তু আমার অবশ্যই একটা রাজনীতি আছে। একটা খোলা মাটির খোলা দর্শনের মধ্যে চোখ কান খোলা রেখে বেঁচে আছি, সেখানেই আমার রাজনীতিটা শিখছি আমি প্রতিদিন। যতটা শিখছি মার্কস-র কাছে, তারচেয়ে অনেক বেশি শিখছি আমার পাড়ার মোড়ের মুদির দোকানদারের কাছে। সে আমার বেশি কাছের। তাই এই ‘বামপন্থী’ তকমাটাকে ফিরিয়ে দিতে চাইলাম এই গানের মধ্য দিয়ে।”

সায়ানের কথাগুলা (অনুমতির মামলা যদি না থাকে) সময়ের দলিল হিসেবে গানপার  সংরক্ষিত করতে পারেন। করা উচিত মনে হয়। পথ-পন্থা-মতবাদে সয়লাব বিশ্বে আমজনতার জন্য কোনটা দামি তার খবর নিতে গিয়া মনে বিস্তর দ্বন্দ্ব পয়দা হয়। গোল বাঁধে আকসার। কোন পথটা মানুষের কাজে দিবে, কোন পক্ষ নিলে আপামর সাধারণের কল্যাণ হবে বেশুমার, কোনটা সময় বিচারে সংগত ও প্রাসঙ্গিক ভাবা যাইতে পারে আর কোনটা বরবাদ বইলা ছাটাই করা নেকি;—নিজের ইমান গচ্ছিত রাখব কোয়ানে? জটিল সওয়ালের তালাশ করতে নেমে গাড্ডায় খাবি খাইতে থাকা মন কিন্তু ফেরত যাইতে চায় সূচনায়,—শিকড়ে। ফেরত যাওয়ার পথটা যেখানে আবার অবরুদ্ধ হইতে দেখে সে। গাড্ডা থেকে বের হইতে একটা গেরিলা পদ্ধতির প্রয়োজন পড়ে। শিল্পীর জন্য শুধু নয়, বেবাক মানুষের জন্য পদ্ধতিটাকে দরকারি ভাবা ছাড়া উপায় থাকে না। সায়ানের শিল্পীসত্তায় সক্রিয় রাজনীতিটা সেরকম বটে!

যেসব গান গত দেড়-দুই দশকে তিনি কণ্ঠে তুলে আনসেন সেগুলার দিকে ফিরা তাকানোর ঘটনায় উনার এই ভ্যালু জাজমেন্ট  গুরুত্ব রাখে। সকল রাজনীতির বাইরে নিজের একটা রাজনীতি যার মাধ্যমে উনি সচল করতেসেন এইখানে। ওইটার ওপর ইমান গচ্ছিত রাখতে পারতেসেন। এখন এই রাজনীতি কি সময়-প্রাসঙ্গিক? তার মধ্যে বদল আনাটা কি দরকারি ছিল? সময়ের পটপরিবর্তনকে সে কতখানি ধারণ করার হ্যাডম রাখে, নাকি রাখে না? সওয়ালগুলা প্রকারান্তরে সায়ানের গানজার্নিকে নিরিখ করতে সাহায্য করে। মানুষটার নাগাল পাইতে, তাঁর শিল্পীসত্তার সঙ্গে ব্যক্তিসত্তার মহব্বত টের পাইতে হেল্প করে ব্যাপক।

মানুষের দলে থাকা সায়ান, আমজনতার পন্থী হওয়ার পথে নিজের রাজনীতিকে নিরিখ করতে তৎপর সায়ান, মুদি দোকানির থেকে মানুষের যাপনপদ্ধতির পেছনে সক্রিয় রাজনীতির ঘাত-প্রতিঘাত-প্রভাবের সবক নিতে উৎসুক সায়ানকে দেখে বোঝা যায়, কিতাবি বুলি নয় বরং অভিজ্ঞতা ও কাণ্ডজ্ঞানে ভর দিয়া নিজের শিল্পীসত্তাকে তিনি সচল রাখতে ইচ্ছুক। শিল্পীসত্তাটা এখানে নিরেপেক্ষ না, তা-বলে কোনো একটা পক্ষের পো ধরতেও হয়রান নয়। পক্ষ যদি বিচরাই সেইটা হইতেসে যতটা সম্ভব মাটি ও মানুষের কাছাকাছি থাকা যায় এমন একটা পক্ষ। প্রকৃতিলগ্ন সহজিয়া জীবনে ইমান গচ্ছিত রাখা যাবে সেরকম কোনো পক্ষ। মতবাদের সপক্ষে ঝান্ডা তুলে ধরার বাতিক যার মধ্যে নাই। মতবাদকে সে ডিনাই করে না, তার বক্তব্য শুনতে আপত্তি নাই তার, কিন্তু সেইটায় কান পাতে অবিশ্বাসীর মন নিয়া। মতবাদ ও পন্থায় মানুষের মুখাবয়ব কতটা ধরা পড়তেসে আর কতখানি ওই মানুষগুলারে সে জিম্মি করতেসে, সেইটা তালাশ করে যে-মন। বৈষম্য-বিভাজনে টুটাফাটা ধরণীতে সাম্য-সমতার খোয়াবে বিভোর থাকার চাইতে ন্যায্যতার আওয়াজ উঠানোকে যে দামি বইলা ভাবে। সায়ানের গানে জাস্টিজের দাবি রক্তগরম বা গায়ে শিহরন জাগাইয়া তোলার মতো বিপ্লবী না হইতে পারে কিন্তু দাবির মধ্যে যে-দৃঢ়তা সেখানে খামতি নাই কোনো। জাস্টিজ  ব্যাপারখানা, তাঁর গান শুনতে গিয়া মনে হয়, আপামর সাধারণের জন্য সহজাত হওয়া উচিত ছিল। নিঃশ্বাসের মতো সহজাত! তাঁর গানের শক্তিটা সেখানে।

আপামর সাধারণের কাতারভুক্ত থাকতে চাওয়ার সংকল্পে অনেক ফেরকা থাকে। সাধারণের অক্ষমতাকে ওইটা নিরাকরণ করতে পারে না। তার ভ্রান্তি, ফিরে-ফিরে নিপীড়িত ও প্রতারিত হওয়া, ঠেকে শেখার মতো তিক্ত অভিজ্ঞতাকে প্রতিরোধের পথ পায় না। আপামর সাধারণকে হয়তো জাগাইতেও পারে না সে! তবু এর মধ্যে যে-দরদ থাকে, সাধারণের অসহায় মুখচ্ছবি ও মর্মযাতনায় শরিক থাকার আবেগ উৎসারিত হয়,—ওইটা ভীষণ দামি।

আমি ধরি মানুষের হাত
সব
 মতবাদ দিয়ে বাদ
জানি
 জিতব না কোনোদিন
সব
 মতবাদ দিয়ে বাদ
আমি
 জিতব না কোনোদিন
আমি
 মরব যে দিনরাত।

আমি এইটুকু পারি দিতে
শুধু
 এইটুকু আছে প্রেম
আমি
 সাধারণ এক মানুষের প্রেম রেখে যাবো ধরণীতে
শুধু
 এইটুকু আছে প্রেম…।

জিতবে না জেনেও সাধারণের কাতারে অটল থাকার সংকল্প ধরে রাখা কঠিন কাজ। হতাশা ও নৈরাশ্য মনে আপনা থেকে ভর করে। তার সঙ্গে লড়াইয়ে নামতে হয়। এনকাউন্টারটা লাগে। গানযাত্রার লগ্ন থেকে কাজটি সায়ান করে আসতেসেন। হট্টগোল ও অনাচারের জামানায়, চক্ষুষ্মান বাক্যনবাবদের অবিরত অন্ধ হইতে দেখার জামানায় উনার এই জার্নিটা কম কীসে?

মানুষ আমার দল । অফিশিয়্যাল লিরিক ভিডিয়ো । সায়ান
মানুষ আমার দল । গানের গল্প ভিডিয়ো । সায়ান


তাৎক্ষণিকামালা
আহমদ মিনহাজ রচনারাশি
ক্ষমতার সঙ্গ, সখ্য, লাভলোকসান ও শিল্পী সায়ান

COMMENTS